শিরোনাম:
ফরিদগঞ্জে কুকুরের কামড়ে আহত ২০ কচুয়ায় মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মেঘনায় কার্গোর ধাক্কায় তলা ফেটেছে সুন্দরবন -১৬ লঞ্চের, নারী নিখোঁজ ষোলঘর আদর্শ উবি’র ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডঃ হুমায়ূন কবির সুমন কচুয়ায় নবযোগদানকৃত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে শিক্ষক সমিতি শুভেচ্ছা মতলব উত্তরে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা উপাদী উত্তর ইউনিয়নে দীপু চৌধুরীর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া পশ্চিম সকদী ডিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে নবগঠিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহন মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে তলিয়ে গেছে এক যুবক ফরিদগঞ্জের ঘনিয়া দরবার শরীফের পীরের সঙ্গে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়ার সাক্ষাৎ

নানা—নাতির চুরির বিচার করে বিপাকে চেয়ারম্যান মেম্বার চুরির দায় এড়াতে গৃহস্থকে মামলা দিয়ে হয়রানি

reporter / ১৭৬ ভিউ
আপডেট : বুধবার, ৩১ মে, ২০২৩

মো.মজিবুর রহমান রনিঃ
হাজীগঞ্জে চোরের বিচার করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বার। সেই চুরির দায় এড়াতে এবার মামলা দিয়ে গৃহস্তকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।
প্রায় দুই মাস আগে গত ১৫ রমজান ইফতারের সময় চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ে হাবুর নাতী শাওন। চোর শাওনতে আটকের পর ছাড়িয়ে নিতে ৯৯৯ ফোন করে পুলিশের সহযোগিতা নিতে গিয়ে ফেঁসে যায় নানা নাতি।
পুলিশের কাছে অকপটে চুরির ঘটনায় শিকারও করেছেন চোর শাওন। পরে থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত অফিসার চোর শাওনকে ইউপি কার্যালয়ে নিয়ে যান। তবে সমাধানের লক্ষে চুরির ঘটনায় থানা অভিযোগ দেননি গৃহস্থ। ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যসহ এলাকার লোকদের উপস্থিতিতে বিষয়টি সমাধান করা হয়।
ঘটনার কয়েকদিন পর জরিমানা না দিয়ে উল্টো চোর শাওন কয়েক জনকে আসামী করে গৃহস্থের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দেয়। বর্তমানে তার এই হয়রানি মূলক মামলা এলাকায় ছাড়া হয়েছেন নারী—পুরুষ। ঘটনাটি চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ৪নং কালচোঁ দক্ষিন ইউনিয়নের ভাটরা গ্রামের মালেক লন্ডনী বাড়িতে ঘটেছে।
বাপের বাড়ি বেড়াতে এসে সর্বস্ব খোয়ালেন মৃত আবুল কাশেমের মেয়ে ফেরদৌসী বেগম। গত ১৪ এপ্রিল তিনি বেড়াতে আসেন। বিকেল গড়িয়ে ইফতারের পর মৃত আবুল কাশেমের ছেলের বসতঘর থেকে মেয়ে ফেরদৌসী বেগমের প্রায় ৩ ভরি ওজনের স্বর্ন ও নগদ ৩২ হাজার টাকা চুরি হয়। পরে একই এলাকার প্রধানীয়া বাড়ির (নানার বাড়ি) মৃত শামীমের ছেলে চিহ্নিত চোর রবিউল আলম শাওনকে সন্দেহ জনক হিসেবে জিজ্ঞাসা করেন ফেরদৌসী বেগমের নিকটাত্মীয়রা। এক পর্যায়ে চুরির বিষয়টি সে শিকার করেন। চোর শাওনের লোকজন ঘটনার দিন রাতে ৯৯৯ ফোন করলে থানার উপ—পরিদর্শক (এসআই) প্রভাকর বড়ুয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে আটক করে। এমনকি এসআই প্রভাকর বড়ুয়ার কাছে স্বর্ন ও নগদ টাকা চুরির বিষয়টি সে অকপটে স্বীকার করে। তবে চুরির ঘটনায় বাদী হয়ে অভিযোগ না দেওয়া থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত অফিসার প্রভাকর বড়–য়া ঘটনাস্থল থেকে চোর শাওনকে উদ্ধার করে ইউপি কার্যালয়ে নিয়ে গিয়ে চেয়ারম্যান মো. গোলাম মোস্তফা স্বপনের কাছে হস্তান্তর করেন।
ওই দিন রাতে চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যসহ এলাকার লোকজন বৈঠক করে চুরির ঘটনাটি মিমাংসা করেন। চোর রবিউল আলম শাওন নগদ ৩২ হাজার টাকা ও প্রায় ৩ ভরি স্বর্ন ৩০ এপ্রিল ফেরত দেওয়ার অঙ্গীকারনামা থাকলেও তা ফেরত দেননি। টাকা এবং স্বর্ন ফেরত না দিয়ে উল্টো চোর শাওনের নানী হাবিবুর রহমানের স্ত্রী লুৎফুরনেছা বাদী হয়ে চাঁদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৩ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। যার সিআর মামলা নং ২৪৮/২০২৩ইং।
মামলা এজহারে দেখা যায়, আসামীরা চোর শাওনের হাতের কব্জি ও মেরুদণ্ডের হাড় ভেঙ্গে ফেলেন। তবে ঘটনার দিন তাকে কেউ মারধর করেনি বলে প্রত্যাক্ষদর্শীরা এ প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছেন। চুরির ঘটনায় থেকে দায় এড়াতে এমন হয়রানি মূলক মামলা দায়ের করেছেন। এরপূর্বেও কয়েকটি ঘরে চুরি করে ওইসব গৃহস্থের বিরুদ্ধে মামলা করেন চোর শাওন। বর্তমানে ২ মাস সে এলাকায় না থাকায় একটি চুরির ঘটনাও হয়নি। আর সে এলাকায় থাকলে দিনে—রাতে অহরহ চুরির ঘটনায় হয় বলে দাবি স্থানীয়দের। চুরির পিছনে শাওনকে সহযোগিতা করছেন তারই নানা হাবিবুর রহমান হাবু।
এলাকার লোকজন জানান, শাওন একটা দাগি চোর । তাকে চুরির ঘটনায় আটক করলে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়।
মামলার আসামী মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, শাওনের চুরিতে মানুষ অতিষ্ট। আমার ভাইয়ের ঘর থেকে বোনের স্বর্ণ এবং নগদ টাকা চুরি করার ঘটনায় স্বীকারোক্তি দিয়ে সময়  নেয়। এর পর আমাদের মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়।
ইউপি সদস্য ইসমাইল হোসেন গাজী বলেন, হাবিব উল্ল্যাহর নাতী শাওন এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে চুরি করে আসছে। চুরির ঘটনায় পুলিশের স্বীকারোক্তি দিয়ে জরিমানা দেওয়ার জন্য সময় নেয়। জরিমানা না দিয়েই উল্টো মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে। সেদিন চোর শাওন কে কোন ধরণের মারধর করা হয়নি। ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে সিসি ক্যামেরা রয়েছে। দুই মাস ধরে চোর শাওন ও তার নানা হাবিব উল্ল্যাহ এলাকায় না থাকায় কোন চুরির ঘটনা ঘটেনি। এর আগেও আনোয়ার হোসেন নামে এক ব্যক্তি ঘরে চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র মামলা দিয়ে তাকে হয়রানি করে এ হাবিব উল্ল্যাহ।


এই বিভাগের আরও খবর