শিরোনাম:
ফরিদগঞ্জে কুকুরের কামড়ে আহত ২০ কচুয়ায় মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মেঘনায় কার্গোর ধাক্কায় তলা ফেটেছে সুন্দরবন -১৬ লঞ্চের, নারী নিখোঁজ ষোলঘর আদর্শ উবি’র ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডঃ হুমায়ূন কবির সুমন কচুয়ায় নবযোগদানকৃত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে শিক্ষক সমিতি শুভেচ্ছা মতলব উত্তরে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা উপাদী উত্তর ইউনিয়নে দীপু চৌধুরীর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া পশ্চিম সকদী ডিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে নবগঠিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহন মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে তলিয়ে গেছে এক যুবক ফরিদগঞ্জের ঘনিয়া দরবার শরীফের পীরের সঙ্গে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়ার সাক্ষাৎ

. বোরহান উদ্দিন ডালিম: মফস্বল প্রতিনিধি থেকে সম্পাদক

reporter / ৫০৭ ভিউ
আপডেট : মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২১

মো. ইসহাক ফারুকী

 

একজন সাংবাদিক। একজন সংগঠক। একজন ইতিহাসবিদ। একজন গবেষক। সবচেয়ে বড় কথা, পুরো চাঁদপুরের গুগল বলা যায় তাকে। চাঁদপুর সদর, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ, ফরিদগঞ্জ, হাজীগঞ্জ, শাহরাস্তি, হাইমচর, কচুয়া তথা পুরো চাঁদপুরের তথ্য জানতে চাইলে যিনি অনায়াসেই বলে দেন সকল তথ্য।-তিনি আর কেউ নন। চাঁদপুরের অতি পরিচিত- সাংবাদিক ডালিম। বর্তমানে যিনি দৈনিক প্রিয় চাঁদপুর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক বোরহান উদ্দিন ডালিম। যেখানে যাই ঘটুক না কেন-সব জায়গার খবরই তিনি রাখেন। তাই খবরের মানুষ হওয়াই একটি দৈনিক পত্রিকা প্রকাশনা ও সম্পাদনার দায়িত্ব নেওয়া মোটেই অসম্ভব নয়। আজ তার নিজের এবং প্রিয় জেলা প্রিয় চাঁদপুরের বুকে শুরু করেছেন অনেক দিনের লালিত স্বপ্ন দৈনিক প্রিয় চাঁদপুর। এর পিছনে রয়েছে টানা প্রায় ২৪ বছরের সাংবাদিকতার ইতিহাস।

সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন ডালিম তার নিজের জবানীতে বলেন, স্কুল জীবন থেকেই আমার লেখালেখির প্রতি প্রবল ইচ্ছে ছিল। তো ১৯৯৮ সালের কথা। সহযোদ্ধা কলমসৈনিকরা  মতলব উত্তরে সাংবাদিকদের একটি সংগঠন করতে আলোচনায় বসেন। শুনে খুশি হলাম। আলোচনা সভায় সাংবাদিকদের নতুন সংগঠনের নাম নির্ধারণ করা হলো ‘‘প্রস্তাবিত ছেংগারচর প্রেসক্লাব’’। ঐদিনই সাংবাদিক লাভলু ভাইকে বললাম আমি এ পেশায় আসতে চাই। তখন তিনি আমার আগ্রহ দেখে পরদিন একটি ঠিকানা দিলেন এবং চাঁদপুর শহরে  যেতে বললেন। তখন চাঁদপুর জেলা শহরে মাত্র চারটি সাপ্তাহিক পত্রিকা ছিল। তখনো চাঁদপুর শহরে দৈনিক পত্রিকা চালু হয়নি। এরপর ঐ ঠিকানা নিয়ে আমার আব্বার কাছ থেকে মাত্র একশ টাকা ভাড়া নিয়ে ১৯৯৮ সালের ২৭ জুন  সাপ্তাহিক ( পরে দৈনিক)  চাঁদপুর সংবাদ অফিসে যাই। অফিসটি  চাঁদপুর শহরের রেলওয়ে হকার্স মার্কেট এর উল্টো দিকে শাপলা স্টুডিও এর পাশে ছিল। অফিসে গিয়ে প্রথমেই পরিচয় হয় চাঁদপুর সংবাদের তৎকালীন বার্তা সম্পাদক শেখ মহিউদ্দিন রাসেল ভাই ও জিয়াউর রহমান বেলাল ভাই এর সাথে। রাসেল ভাই আমাকে বিকেল বেলা পত্রিকার সম্পাদক আবদুর রহমান সাহেবের সাথে পরিচয় করে দিলেন। আমাকে সম্পাদক বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে বিদায় দিলেন। পরদিন ২৮ জুন আমার জন্মদিন আর সেদিনই আমার প্রথম সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে। শিরোনামটি ছিলো ‘‘বিষপান করে গৃহিণীর আত্মহত্যা’’। শুরু হয়ে গেলো আমার পত্রিকায় লেখালেখি। তখনকার দিনে এখনকার মত কম্পিউটার ব্যবহার করে সংবাদ লেখার সুযোগ ছিল না মফস্বল এলাকায়। আমরা হাতে লিখে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে খোলা ডাকের মাধ্যমে পত্রিকা অফিসে সংবাদ পাঠাতাম। অনেক কঠিন ছিলো তখন পত্রিকায় সংবাদ পাঠানো। ইচ্ছে করলেই মফস্বল থেকে সংবাদ পাঠানো সম্ভব হতো না। বেশি জরুরি সংবাদ হলে মতলব শহর বা কালীরবাজারে ফ্যাক্স করতে যেতে হতো। যেদিন নিজ নামে সংবাদ প্রকাশ হতো, সেদিন অনেক আনন্দ উপভোগ করতাম। আমার দীর্ঘ সাংবাদিকতার সময়ে মতলব উত্তর উপজেলায় রাজনৈতিক সফরে এসেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মরহুম মিজানুর রহমান চৌধুরী, অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মরহুম মোহাম্মদ হানিফসহ বিভিন্ন সরকারের আমলের অনেক  মন্ত্রী  ও  জাতীয় নেতৃবৃন্দ। তাদের সংবাদ সংগ্রহ করার সৌভাগ্য হয়েছে আমার।’

রাজধানীর পত্রিকা অফিসে যারা নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করেন তারা যেকোনো একটা বিষয়ে লিখেন। কিন্তু গ্রামে বা মফস্বল এলাকায় সাংবাদিকতা করতে হলে সকল বিষয়ে পারদর্শী হতে হয়। সরকার, রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অপরাধ-অনুসন্ধান, আইন-আদালত, খেলাধূলা, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি তথা সংবাদের সকল শাখায় তার বিচরণ।

বিভিন্ন পত্রিকায় কাজের সুবাদে তার অভিজ্ঞতার ঝুলি আজ অনেক ভারী। তিনি তার যাত্রা শুরু করেন তৎকালীন সাপ্তাহিক চাঁদপুর সংবাদ (বর্তমানে দৈনিক) দিয়ে। এরপর দৈনিক বাংলাবাজার, দৈনিক দিনকাল, দৈনিক প্রাইম, দৈনিক দেশজনতা ও দৈনিক বর্তমানসহ বিভিন্ন পত্রিকায় মতলব প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। পরবর্তীতে ২০০১ সালের শুরুতে চাঁদপুর দর্পণ পত্রিকায় কাজ করেছেন। একই সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে একটানা দুই বছর দৈনিক চাঁদপুর প্রবাহ পত্রিকায় মতলব উত্তর উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন। দৈনিক চাঁদপুর খবর পত্রিকায় বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবেও কাজ করেন। দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধি  ও জাতীয়  পত্রিকা দৈনিক বাংলাদেশের আলো পত্রিকার সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করছেন।

শুধু প্রতিবেদক হিসেবে নয়, সম্পাদক হিসেবেও আজ তিনি নতুন নন। অত্যন্ত সাফল্যের সাথে কাজ করেছেন। ২০১২ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ঢাকায় সাপ্তাহিক পরিচয় পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে সম্পাদনা করেন।

একজন সম্পাদককে শিক্ষিত, জ্ঞানী ও তথ্যসমৃদ্ধ হতে হয়। তিনি প্রথমে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করার পর তথ্যবিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনায় আরেকবার মাস্টার্স করেন। পরবর্তীতে এলএলবি করার পর আইন পেশার সাথেও যুক্ত আছেন।  মতলব উত্তর প্রেস ক্লাবের বর্তমান সভাপতি ও মতলব উত্তর থানা কমিউনিটি পুলিশিং -এর আইন সম্পাদক হিসেবে বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে তার দৃপ্ত পদচারণা।

প্রতিটি অন্যায়ের বিরূদ্ধে বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর হিসেবে যিনি বেশ পরিচিত; তার হাতে একটি দৈনিক পত্রিকার ভার- এটা তো থেকেই অনুমান করা গিয়েছে। যদিও দৈনিক প্রিয় চাঁদপুর তার একটি স্বপ্ন; কিন্তু সত্যের সন্ধানে নিরপেক্ষ সাংবাদিক ডালিমের হাতে পড়ে পত্রিকাটি হয়ে উঠবে সকলেরই প্রিয়-এমনটাই আশা করি। আজ প্রিয় চাঁদপুর সকল চাঁদপুরবাসীর মনে ও মননে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন ডালিমের। তিনি তার দায়িত্ব সঠিকভাবেই পালন করবেন। কারণ তিনি জানেন, কাকে কতটুকু সম্মান দিতে হয়; কোন সংবাদের গুরুত্ব কতটুকু; সংবাদকে কিভাবে সবার উপযোগী করে উপস্থাপন করতে হয়; তত্ত্ব ও তথ্যের সম্পর্ক কতটুকু; চাঁদপুরের ঐতিহ্য কিভাবে রক্ষা করতে হয়; কিভাবে দেশ ও সংস্কৃতির চর্চা করতে হয়; সব মিলিয়ে তিনি দৈনিক প্রিয় চাঁদপুর পত্রিকার মাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার উজ্জ্বল উদাহরণ সৃষ্টি করতে পারবেন।

একজন প্রতিনিধি থেকে সম্পাদক হওয়ার যে পথ তিনি পাড়ি দিয়েছেন; সেজন্য তার ভবিষ্যৎ জীবন আরও সুন্দর হবে-এই আশা করি। বোরহান উদ্দিন ডালিমের সঠিক নির্দেশনায় নতুন নতুন ভাবনা নিয়ে প্রিয় চাঁদপুর এগিয়ে যাবে এবং মানুষের প্রিয় হয়ে উঠবে।

 

উপদেষ্টা সম্পাদক, দৈনিক প্রিয় চাঁদপুর


এই বিভাগের আরও খবর