শিরোনাম:
ফরিদগঞ্জে কুকুরের কামড়ে আহত ২০ কচুয়ায় মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মেঘনায় কার্গোর ধাক্কায় তলা ফেটেছে সুন্দরবন -১৬ লঞ্চের, নারী নিখোঁজ ষোলঘর আদর্শ উবি’র ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডঃ হুমায়ূন কবির সুমন কচুয়ায় নবযোগদানকৃত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে শিক্ষক সমিতি শুভেচ্ছা মতলব উত্তরে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা উপাদী উত্তর ইউনিয়নে দীপু চৌধুরীর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া পশ্চিম সকদী ডিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে নবগঠিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহন মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে তলিয়ে গেছে এক যুবক ফরিদগঞ্জের ঘনিয়া দরবার শরীফের পীরের সঙ্গে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়ার সাক্ষাৎ

সরেজমিন মেঘনায় লাখো মাছের মৃত্যু ; সঠিক কারণ জানেন না মৎস্য অধিদপ্তর

reporter / ২১৩ ভিউ
আপডেট : শুক্রবার, ৭ এপ্রিল, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
হঠাৎ খরস্রোতা মেঘনা নদীর চাঁদপুর অঞ্চলের বেশ কিছু জায়গায় কয়েক লাখ মাছ ভেসে উঠে তীরে ভাসতে থাকে। এসব মাছ মূলত মরে গিয়ে নদী তীরে ভেসে উঠেছিলো গত ৩০ মার্চ। চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার কোল ঘেঁষে বয়ে চলা প্রমত্তা মেঘনায় লাখো মাছের এমন মৃত্যুতে স্থানীয় জেলেদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়েছে।
সরেজমিনে উপজেলার মেঘনা নদীর বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে কয়েক লাখ মাছের মৃত্যু চিত্র চোঁখে পড়ে। এমন ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও সঠিক কোন কারণ ব্যাখ্যা করতে পারেনি মতলব উত্তর উপজেলা মৎস্য অফিস। উপজেলার জেষ্ঠ্য মৎস্য কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগম এর কাছে  এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি ঘটনা শুনে বিভিন্ন স্থান পরিদর্শনে গিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন। তবে নদীর পানি দূষণ কিংবা অন্য কোন ঘটনা অনুসন্ধান করা মৎস অধিদপ্তরের দায়িত্ব না বলে তিনি জানান।
এসব বিষয়ে অনুসন্ধান করা এবং পানি অথবা মাছের নমুনা সংগ্রহ করা পরিবেশ অধিপ্তরের কাজ বলে জানিয়ে তাদের সাথে কথা বলারও পরামর্শ প্রদান করেন এ কর্মকর্তা। এদিকে ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল  পর্যন্ত ইলিশ প্রজনন মৌসুম থাকায় এমন ঘটনায় ইলিশ প্রজননে বাধা নিয়ে শঙ্কাও রয়েছে স্থানীয় জেলেদের মাঝে। সূত্রে জানা যায়, মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল ইউনিয়নের জেলেপাড়া, বাবু বাজার,সটাকি, বাহাদুরপুর সহ বিভিন্ন এলাকার মেঘনা নদীর তীরে মরে থাকতে দেখা যায় কয়েক লাখ মাছ।
এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে স্বর্বস্তরে আলোচনার জন্ম নেয়। ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করতে পানির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে (ল্যাবরেটরী) পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন চাঁদপুর জেলায় দায়িত্বরত পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ হান্নান । এখন পর্যন্ত ল্যাব রিপোর্ট হাতে পাননি বলে জানান এ কর্মকর্তা । এদিকে মৎস্য অধিপ্তর থেকে অনুমানের উপর নির্ভর করে একটি প্রতিবেদন তৈরী করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা মৎস কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান।
তিনি বলেন, দীর্ঘ সময় অনাবৃষ্টির পর মৌসুমের প্রথম বৃষ্টি হওয়ায় নারায়ণগঞ্জ সহ আশে পাশের এলাকা থেকে নির্গত কলকারখানার বিভিন্ন রাসায়নিক বৃষ্টির পানির সংস্পর্শে এসে বিক্রিয়ার ফলে মাছের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে অন্যান্ন বছর এমন বিক্রিয়া কিংবা লাখো মাছের হঠাৎ মৃত্যু কেন ঘটেনি? এমন প্রশ্নের সদুত্তর না দিয়ে তিনি, মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট নমুনা সংগ্রহ করেছে বলে দায়মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করেন।
তবে জেলা কিংবা উপজেলা মৎস্য কার্যালয় থেকে নির্দিষ্ট কোন তথ্য প্রকাশ না হওয়ায় জনমনে থাকা আতঙ্ক ও আশঙ্কা এখনো বিরাজ করছে। এমন পরিস্থিতিতে এ অঞ্চলে জেলেদের জালে ধরা পরা মাছ আহরণ করা কতটা নিরাপদ তা নিয়েও  অনিশ্চিত মৎস্য ভোগীরা।


এই বিভাগের আরও খবর