শিরোনাম:
ফরিদগঞ্জে কুকুরের কামড়ে আহত ২০ কচুয়ায় মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মেঘনায় কার্গোর ধাক্কায় তলা ফেটেছে সুন্দরবন -১৬ লঞ্চের, নারী নিখোঁজ ষোলঘর আদর্শ উবি’র ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডঃ হুমায়ূন কবির সুমন কচুয়ায় নবযোগদানকৃত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে শিক্ষক সমিতি শুভেচ্ছা মতলব উত্তরে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা উপাদী উত্তর ইউনিয়নে দীপু চৌধুরীর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া পশ্চিম সকদী ডিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে নবগঠিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহন মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে তলিয়ে গেছে এক যুবক ফরিদগঞ্জের ঘনিয়া দরবার শরীফের পীরের সঙ্গে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়ার সাক্ষাৎ

হাইমচরে ভাতিজিকে নিয়ে ফুফার পলায়ন থানায় মামলা

reporter / ১৪৫ ভিউ
আপডেট : রবিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
প্রেম মানে না শাসন, না মানের ধর্মের কোন রিতি, সমাজের পরিচিত ও তোয়াক্কা করে না, বা আপন সম্পর্কের বিষয়ে হিতাহিত জ্ঞান থাকে না। বয়সের মাপকাটি যাচাই না করে জীবন সঙ্গিনি হিসেবে বেছে নিয়ে পলায়ন করছে অহরহ। কিন্তু এবার সমদ্দির মেয়ে ১৫ বছরের ভাতিজিকে নিয়ে তিন সন্তানের জনকের পলায়ন ঘটেছে। ঘটনার সুত্রপাতে সরেজমিনে, চাঁদপুর জেলার হাইমচর উপজেলার ১নং গাজীপুর ইউনিয়ন মনিপুর গ্রামের ৬নং ওয়ার্ডে গিয়ে জানা যায়, নিজের বিয়ের বয়সি মেয়েকে ঘরে রেখে আরেক মেয়ে বয়সি মেয়েকে নিয়ে প্রেম নগরে পারি দিয়েছে। মোঃ জামাল হোসেন (৪৮) পিতা মোতালেব সরকার ৬নং ওয়ার্ড গাজীপুর ইউনিয়ন। তার স্ত্রী কাকলী বেগম বলেন, আমার বড় মেয়ে জান্নাত (১৩) প্রতিবন্ধী ছেলে ইউসুফ (১১) ও ১৩ মাসের আয়শা নামে তিন সন্তান রয়েছে, আমার পাশের বাড়ির শাহজালাল হাওলাদারের ১৫ বছরের সাথী আক্তার আমার ভাইয়ের মেয়ে, বিগত এক বছর ধরে আমার স্বামীর সাথে সাথীর প্রেমের সম্পর্ক চলছে। যাহা নিয়ে আমার স্বামীর  সাথে বহু ঝগড়া হতো, আমি নিষেধ করলে স্বামী আমাকে মারতে মারতে রক্ত বের করে ফেলত, এলাকায় বহি দরবার শালিশ হয়েছে। কিন্তু সাথীর মা বাবা মেয়েকে শাসন করেনি বলে ১০ ই এপ্রিল  রবিবার বিকেলে আমার স্বামী দুইটি গরু বিক্রি করার দের লাখ টাকা আনতে যাই বলে বাড়ি থেকে বের হয়। সন্ধার পরে তেলির মোরের কিছু লোকজন সহ পাশের এলাকার কিছু লোকজন আমাকে বলে সাথী সহ জামাল ট্রলারে করে আলগী গেছে।  রাত বেশি হলে আমি সাথীর মা বাবাকে বলতে গেলে তাদের বাড়ি পাই না, তাছারা জামালের মোবাইল ফোনে বহু ফোন করে দেখি ফোনটি বন্ধ, যার কারনে আমার স্বামীকে ওই মেয়ে সাথী প্রেমের ফাঁধে ফেলে আমার সুখের সংসার তছনছ করেছে, আমি মনে করি সাথীর মা বাবা এ বিষয়ে জড়িত। তারা বলতে পারবে তার মেয়ে ও আমার স্বামী  কোথায পাকিয়ে আছে। বর্তমানে আমার প্রতিবন্ধী  ছেলে সহ উপযুক্ত  মেয়ে ও ছোট শিশুটি নিয়ে অনাহারে দিন কাটাচ্ছি, তার সাথে সাথীর মা বাবা আমাকে নানাহ ধরনের হুমকি দিচ্ছে, বলে তার মেয়ে নাকি অবুঝ, যদি তাই হয় তাহলে বাবার বয়সি পুরুষের  সাথে প্রেম করে টাকার লোভে পালিয়ে গেলো কেমন করে। আমি আইনের সহযোগীতা নিমু, আমার তিন সন্তানকে নিয়ে আমি আইনের সহযোগীতা পামু আইন আমারে আমার স্বামীকে খুজে আনবো।
 এদিকে সাথীর বাড়িতে গিয়ে তার বাবা মাকে না পেলেও, দাদা বলেন তার নাতনী, গাইড বই কিনতে বাড়ি থেকে ২ হাজার টাকা নিয়ে আলগী বাজার গিয়ে আর বাড়ি ফিরে আসেনি, আর দাদী বলেন আমার নাতনিরে স্কুল থেকে ফুসলিয়ে জামাল নিয়ে পালিয়ে। সাথীর মা বাবা সাথীরে বিভিন্ন যায়গায় খুজতেছে।
 অপর দিকে এলাকাবাসি জানান, সাথী আর জামালের প্রেমের বিষয় নিয়ে আমরা বহুবার সাশিয়েছি, কিন্তু সাথীর মা বাবা আমাদের কথা পাত্তা দেয়নি, তাছারা জামেলের প্রতিবন্ধী  ছেলে  সহ যুবতি মেয়ে ও ছোট আরেকটি মেয়ে আছে, তাহা জানা সত্বেও সাথী বাবার বয়সি ফুফার সাথে কেমন করে প্রেম করে পালায়, আমরা জানাল ও সাথীকে খুজে বের করার দাবি করছি। মূলত বিষয় হচ্ছে মেয়ে বয়সি ভাতিজিকে নিয়ে ফুফার পলায়নটি বর্তমানে ওই এলাকায় বেপক তোলপাড় সৃষ্টি  হয়েছে।এদিকে রোববার জামালের স্ত্রী বাদি হয়ে স্বামী সহ সাথীকে আসামি করে হাইমরচ থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলার বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ  মাহাবুবুর রহমান মোল্লা বলেন, কাকলি বেগম বাদি হয়ে স্বামী  সহ সাথীকে  আসামি  করে  জিডি করেছেন, আমরা তার আলোতে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখবো।
আইনের  আশ্রয় নেবার পরে  অসহায় পরিবারটির প্রতি আইনের সু বিচার পাবে বলে আমরা সহ সচেতন মহল মনে করেন।


এই বিভাগের আরও খবর