শিরোনাম:
ফরিদগঞ্জে কুকুরের কামড়ে আহত ২০ কচুয়ায় মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মেঘনায় কার্গোর ধাক্কায় তলা ফেটেছে সুন্দরবন -১৬ লঞ্চের, নারী নিখোঁজ ষোলঘর আদর্শ উবি’র ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডঃ হুমায়ূন কবির সুমন কচুয়ায় নবযোগদানকৃত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে শিক্ষক সমিতি শুভেচ্ছা মতলব উত্তরে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা উপাদী উত্তর ইউনিয়নে দীপু চৌধুরীর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া পশ্চিম সকদী ডিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে নবগঠিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহন মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে তলিয়ে গেছে এক যুবক ফরিদগঞ্জের ঘনিয়া দরবার শরীফের পীরের সঙ্গে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়ার সাক্ষাৎ

মতলব দক্ষিণের কৃষি কার্যালয়ে কর্মকর্তার সংকট, কার্যক্রম ব্যাহত 

reporter / ১২৮ ভিউ
আপডেট : মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২২

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধিঃ মতলব দক্ষিণ উপজেলায় প্রধান কৃষি কর্মকর্তার পদ প্রায় চার মাস ধরে খালি। ওই পদ ছাড়াও কৃষি কার্যালয়ের আওতায় কৃষি কর্মকর্তার আরও ১০টি পদ গত তিন বছরের বেশি সময় ধরে খালি। এতে কৃষকদের কৃষিবিষয়ক পরামর্শ, বিনা মূল্যে বীজ-সার বিতরণ ও তদারকি, আধুনিক প্রযুক্তিতে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি, পোকামাকড় দমন এবং বিভিন্ন প্রকল্পের প্রদর্শনী বাস্তবায়ন কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন উপজেলার ১৯ হাজারের বেশি কৃষক।
উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানায়, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দিলরুবা খানম গত ১৬
সেপ্টেম্বর বদলি হন। এরপর প্রায় চার মাস ধরে ওই পদ খালি। এ ছাড়া কৃষি কার্যালয়ে কৃষি
সম্প্রসারণ কর্মকর্তার এক পদ ও অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তার এক পদ বিভিন্ন মেয়াদে খালি।
সূত্রটি জানায়, উপরে উল্লেখিত ওই তিন পদ ছাড়াও উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন ও একটি
পৌরসভার ১৯টি কৃষি ব্লকে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার ১৯ পদের মধ্যে ৮টি পদ তিন বছরের
বেশি সময় ধরে শূন্য। অবসরজনিত কারণে ২০১৯ সালে এসব পদ শূন্য হয়। যে আটটি ব্লকে কৃষি কর্মকর্তা নেই সেগুলো হচ্ছে পিতাম্বর্দী, আধারা, নায়েরগাঁও, খিদিরপুর, কালিকাপুর,
নারায়ণপুর, নওগাঁও ও করবন্দ। উপজেলায় মোট কৃষক ৪৫ হাজার ৫৫৯। ওই আট ব্লকে কৃষকের সংখ্যা ১৯ হাজার ১৭৬। উপজেলা কৃষি কার্যালয়ে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কৃষি কর্মকর্তার মোট ২৩ পদের মধ্যে ১১টি পদ খালি। উপজেলার পিতাম্বর্দী এলাকার কৃষক লোকমান হোসেন বলেন, ‘প্রায় মাসখানেক আগে আমার সবজিখেতে পোকার আক্রমণ অইছিল। পরামর্শের লইগা স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তার খোঁজ কইরাও পাই নাই। হুনছি , এ এলাকায় কৃষি কর্মকর্তা নাই।
তাছাড়া আমাগো এলাকায় কৃষি কর্মকর্তা না থাওনে আধুনিক পদ্ধতির চাষাবাদে ভালা পরামর্শ পাইতাছি না। বিনা মূল্যে সার ও বীজ বিতরণের কথাও প্রায়ই জানতে পারি না। রোগবালাই দমনে সঠিক সময়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারতাছি না। নানা ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অইতাছি। ফসল আবাদ কইরা ভোগান্তিও অইতাছে।’
উপজেলার বারগাঁও ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা কাজী আনোয়ারের ভাষ্য, নিজ
ব্লকে দায়িত্ব ছাড়াও পিতাম্বর্দী ও আধারা ব্লকে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। একজনের পক্ষে তিনটি ব্লকের দায়িত্ব পালন কষ্টসাধ্য ব্যাপার। একই সঙ্গে তিন এলাকার কাজ করতে গিয়ে গলদঘর্ম হচ্ছেন। এতে কোনো কাজই ভালোভাবে করা যায় না। শূন্য পদে কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগ খুবই জরুরি।
উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. আয়েত আলী বলেন, মতলব
পৌর এলাকায় উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার ছয়টি পদ বিলুপ্ত করে ২০১৪ সালে একটি পদ করা হয়েছে। একজন কর্মকর্তার পক্ষে ওই ছয় পদের কাজ করা অসম্ভব। পৌর এলাকায় উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার আরও পাঁচটি পদ সৃষ্টি করা দরকার। অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো.সালাউদ্দিন বলেন, এ উপজেলায় কৃষি কর্মকর্তার অনেকগুলো পদ দীর্ঘদিন ধরে খালি থাকায় কৃষি কার্যক্রমে গতি নেই। শূন্য পদে কর্মকর্তা দেওয়ার জন্য একাধিকবার জেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপপরিচালকের (ডিডি) কার্যালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর